Press Release Day-8

Academy-for-Manipuri-Culture-&-Arts

সিলেটে বেঙ্গল সংস্কৃতি উৎসব

প্রতিদিন বাড়ছে আগ্রহী দর্শক-শ্রোতাদের ভিড়

সিলেট নগরে আয়োজিত বেঙ্গল সংস্কৃতি উৎসব শেষ হচ্ছে আগামীকাল শুক্রবার। উৎসবের শেষ দিকে এসে যেন মানুষের ভিড় ক্রমাগত বাড়ছেই। সন্ধ্যার পর হতে উৎসব স্থল ঘিরে গিজগিজ করতে থাকেন মানুষ। কেউ গান শুনছেন আবার কেউবা ভিড় করছেন কারুমেলায়। কারো আগ্রহ চলচ্চিত্র প্রদর্শনী নিয়ে আবার কারো আগ্রহ ফুডকোর্ট ঘিরে। সুবীর চৌধুরী আর্ট ক্যাম্পেও আগ্রহী শিল্পানুরাগীরা ভিড় করছেন। নিবিষ্ট পাঠকেরা ভিড় করছেন প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান বেঙ্গল পাবলিকেশন্স এবং প্রথমার স্টলে। এখানে-সেখানে জটলা বেঁধে কেউ কেউ আবার আড্ডায় মশগুল। সবমিলিয়ে এক প্রাণবন্ত উৎসবেরই চিত্র যেন।


অ্যাকাডেমি ফর মণিপুরি কালচার অ্যান্ড আর্টসের শিল্পীদের মণিপুরী নৃত্য পরিবেশনা।

আর প্রতিদিনের মতো এ চিত্র দেখা গেছে গতকাল বুধবারও। সন্ধ্যার পর থেকে প্রায় মধ্যরাত পর্যন্ত নগরবাসীর বিনোদনের অস্থায়ী এক কেন্দ্রই যেন এখন হয়ে দাঁড়িয়েছে আবুল মাল আবদুল মুহিত ক্রীড়া কমপ্লেক্স। কারণ এখানেই যে চলছে ১০ দিন ব্যাপী বেঙ্গল সংস্কৃতি উৎসব। গতকাল ছিল উৎসবের অষ্টম দিন। বেলা চারটায় চলচ্চিত্র প্রদর্শনের মধ্য এ দিনের অনুষ্ঠান শুরু হয়। গতকাল বিকেলে ভিড় কিছুটা কম থাকলেও সন্ধ্যার পর মানুষজনের উপস্থিতি ছিল প্রচুর। উল্লেখ্য, গত ২২ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া এ উৎসব চলবে ৩ মার্চ পর্যন্ত। পুরো উৎসবটি উৎসর্গ করা হয়েছে জ্ঞানতাপস আব্দুর রাজ্জাককে। ইনডেক্স গ্রুপ নিবেদিত এ উৎসবের সহযোগিতায় রয়েছে ঢাকা ব্যাংক। সম্প্রচার সহযোগী চ্যানেল আই।


অ্যাকাডেমি ফর মণিপুরি কালচার অ্যান্ড আর্টসের শিল্পীদের মণিপুরী নৃত্য পরিবেশনা।

গতকাল বেলা চারটা থেকে সৈয়দ মুজতবা আলী মঞ্চে ‘আমার বন্ধু রাশেদ’, ‘রানওয়ে’ ও ‘তিতাস একটি নদীর নাম’ চলচ্চিত্র তিনটির প্রদর্শনী হয়। হাসন রাজা মঞ্চে সন্ধ্যা ছয়টা ২০ মিনিটে মণিপুরী নৃত্য অ্যাকাডেমি ফর মণিপুরি কালচার অ্যান্ড আর্টসের শিল্পীরা মণিপুরী নৃত্য পরিবেশন করেছে। এরপর সংক্ষিপ্ত অনুভূতি প্রকাশ করে বক্তব্য দেন বাংলাদেশে নিযুক্ত শ্রীলংকার হাইকমিশনার ইয়াসোজা গুনাসেকারা। এ সময় তাঁকে মঞ্চে নিয়ে আসেন বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান আবুল খায়ের। রাগাশ্রয়ী বাংলা গান পরিবেশন করেন শিল্পী প্রিয়াংকা গোপ। প্রিয়াংকার পর রবীন্দ্রসংগীত গাইতে মঞ্চে ওঠেন শিল্পী বুলবুল ইসলাম। তিনি বেশ কতগুলো গান পরিবেশন করেন। সবশেষে মঞ্চে আসেন ভারতের রবীন্দ্রসংগীত ও আধুনিক গানের বিশিষ্ট শিল্পী জয়তী চক্রবর্তী। তিনি গান পরিবেশন করে শ্রোতাদের মন্ত্রমুগ্ধের মতো আবিষ্ট করে রাখেন। পুরো অনুষ্ঠানটি সঞ্চালন করেন বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক লুভা নাহিদ চৌধুরী।


বাম থেকে:বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান আবুল খায়ের ও শ্রীলংকার হাইকমিশনার ইয়াসোজা গুনাসেকারা।

এর আগের দিন মঙ্গলবার রাতে কলকাতার প্রখ্যাত শিল্পী শ্রীকান্ত আচার্য্য যখন মঞ্চে ওঠার পর মাঠভর্তি মানুষ তন্ময় হয়ে শোনেন তাঁর গান। শ্রীকান্ত কথায় আর গানে সিলেটবাসীকে মাতিয়ে রাখেন। তিনি গেয়ে শোনান ‘ভালো আছি ভালো থেকো’, ‘বন্ধু তোমার পথের সাথীকে চিনে নিও’, ‘আমার এই পথ চলাতেই আনন্দ’, ‘আমায় প্রশ্ন করে নীল ধ্রুব তারা’, ‘উড়ো চিঠি’, ‘এই পথ যদি না শেষ হয়, তবে কেমন হতো, তুমি বলো তো’, ‘আমার সারাটা দিন মেঘলা আকাশ’, ‘যদি তোর ডাক শুনে কেউ না আসে’, ‘মেয়েটা ছিল’, ‘মেঘ মানে না কাঁটাতারের বেড়া’, ‘তোমার জন্য’সহ তাঁর জনপ্রিয় কিছু গান। উপস্থিত দর্শকেরা বুঁদ হয়ে শোনেন তাঁর গান।


অ্যাকাডেমি ফর মণিপুরি কালচার অ্যান্ড আর্টসের শিল্পীদের মণিপুরী নৃত্য পরিবেশনা।

আজকের পরিবেশনা : বেলা চারটায় সৈয়দ মুজতবা আলী মঞ্চে ‘রীনা ব্রাউন’ চলচ্চিত্র প্রদর্শনের মাধ্যমে বেঙ্গল সংস্কৃতি উৎসবের নবম দিনের অনুষ্ঠান শুরু হবে। সন্ধ্যা সোয়া সাতটায় সৈয়দ মুজতবা আলী মঞ্চেই লোকনাট্যদল মঞ্চনাটক ‘কঞ্জুস’ পরিবেশন করবে।
হাসন রাজা মঞ্চে বেলা চারটায় ছোটদের দলীয় পরিবেশনা ‘চতুরঙ্গ’ পরিবেশিত হবে। এরপর জাতীয় রবীন্দ্রসংগীত সম্মিলন পরিষদ সিলেটের শিল্পীদের পরিবেশনা থাকবে। এরপরই রয়েছে ছোটদের গীতিনাট্য ‘শিশুতীর্থ’ পরিবেশনা। তারপর শিল্পী রাকিবা ইসলাম ঐশী নজরুলসংগীত পরিবেশন করবেন। এরপর ভাওয়াইয়া গান গাইবেন শফিউল আলম রাজা। এরপর পুনরায় নজরুলসংগীত পরিবেশন করবেন শিল্পী ফেরদৌস আরা। এরপরই ভারতের বিশিষ্ট শিল্পী হৈমন্তী শুক্লা গান পরিবেশন করবেন। সবশেষে ভারতের জনপ্রিয় লোকসংগীতশিল্পী পার্বতী বাউল গান পরিবেশন করবেন।


অ্যাকাডেমি ফর মণিপুরি কালচার অ্যান্ড আর্টসের শিল্পীদের মণিপুরী নৃত্য পরিবেশনা।

উল্লেখ্য, প্রতিদিনই কয়েকটি মঞ্চে অনুষ্ঠান হচ্ছে। মূল অনুষ্ঠান হচ্ছে সৈয়দ মুজতবা আলী এবং হাসন রাজা মঞ্চে। এ ছাড়া প্রথম দিন থেকেই শাহ আবদুল করিম চত্বরে বাদ্যযন্ত্র ও সিলেট অঞ্চলের লোকগানের ইতিহাস নিয়ে প্রদর্শনী; গুরুসদয় দত্ত চত্বরে কারুমেলা ও বেঙ্গল প্যাভিলিয়ন এবং কুশিয়ারা কলোনেডে স্থাপত্য প্রদর্শনী শুরু হয়েছে। রাধারমণ দত্ত বেদিতে অনুষ্ঠিত হচ্ছে সুবীর চৌধুরী আর্ট ক্যাম্প।